ইতিহাসনামায় আপনাকে স্বাগতম

এক মাস বয়সী শিশুর বয়স যেভাবে ২৮ হতে পারে - ইউসুফ হাসান আদিত্য



মলি গিভসন। যুক্তরাষ্ট্রের টেনেসি রাজ্যে জন্ম নেওয়া এই শিশুটির বয়স মাত্র এক মাস। তবে তর্কের খাতিরে অনেকেই বলবেন এই শিশুটির বয়স ২৮ বছর! অনেকেই ভাববেন কীভাবে? আবার অনেকে এক মাসের বাচ্চার বয়স কিভাবে ২৮ বছর হয় তা নিয়ে নিশ্চয়ই হিসাব কষতে বসে গিয়েছেন। কিনতু আসল ঘটনা শুনলে বলবেন নাহ, তার বয়স ২৮ বছরই। কারণ, মলি গিভসন নামে জন্ম নেওয়া শিশুটি যে ভ্রূণ থেকে জন্ম হয়েছে সেটি সংরক্ষণ করা হয়েছিল আজ থেকে ঠিক ২৮ বছর আগে।

জানা যায় যে সেই ১৯৯২ সালের অক্টোবর মাস থেকে মলি গিভসন নামক এই কন্যাশিশুটিকে ভ্রূণ অবস্থাতেই জমাট রাখা হয়েছিল। যা হিসাব করলে দাঁড়ায় দীর্ঘ ২৮ বছর। অবশেষে ২০২০ সালের ফেব্রুয়ারিতে ২৯ বছর বয়সী মার্কিন তরুণী টিনা গিবসনের গর্ভে ভ্রুণটি প্রতিস্থাপন করা হয়।
 
সবশেষ গেল ২৬শে অক্টোবর মার্কিন তরুণী টিনা গিবসনের গর্ভেই পূর্ণতা লাভ করে জন্ম নেয় শিশুটি। যা একটি ইতিহাস।
এর আগে এতো পুরোনো ভ্রূণ মাতৃদেহে বেড়ে উঠে জন্মলাভ করতে পারেনি। মজার এবং অবাক করার বিষয় হলো, মলি গিভসনের জন্মদাত্রী মা টিনা গিবসনের জন্মেছিলেন তার সন্তান মলিকে ভ্রূণ অবস্থায় সংরক্ষণ করার ঠিক ১৮ মাস আগে!

নিউইয়র্ক পোস্টকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে মলি গিভসনের মা টিনা গিবসন বলেছিলেন ''এটি সহজে ভুলে থাকার মতো বিষয় নয় । কিন্তু, আমাদের কাছে মলি হলো ছোট বিস্ময়কর সোনামনিটি।”

এর ঠিক তিন বছর আগে তার সহোদরা এমা ওয়ারেন গিবসনের জন্ম হয়েছিল ২৪ বছরের পুরনো ভ্রূণ থেকে। আর তার গড়া বিশ্ব রেকর্ডটি ভাঙলো তারই ছোট বোন মলি গিভসন। হ্যাঁ এমা ওয়ারেন গিবসনের ছোট বোন মলি গিভসন। যা এখন পর্যন্ত পৃথিবীর আর কোথাও ঘটেছে কিনা জানা যায়নি।

তার ওপর এত পুরোনো ভ্রূণ এই প্রথম সফলভাবে কোনো মাতৃদেহে বেড়ে উঠে জন্মলাভ করার মতো বিজ্ঞানের বিস্ময় নিয়ে এত নজর নেই মলি গিভসনের মা টিনা গিবসন ও বাবা বেন গিবসনের। তারা নতুন অতিথি পেয়েই খুব খুশি হয়েছে। বাস্তবের প্রয়োজনীয়তা গিভসন পরিবারকে এভাবে শিশু জন্মদানে বাধ্য করে। তাদের পরিবারটি বেশ কিছুদিন ধরে একক পরিবার হয়ে ছিলো। কারন  স্বামী-স্ত্রী  দীর্ঘদিন ধরেই সন্তান জন্মদানে ব্যর্থ হচ্ছিলেন। ঠিক এমন সময় তারা এই দুটি জমাট ভ্রূণের কথা জানতে পারেন।

যুক্তরাষ্ট্রের টেনেসি অঙ্গরাজ্যের নক্সভিল শহরের ন্যাশনাল এমব্রয় ডোনেশন সেন্টারে ১৯৯২ সালের অক্টোবরে জন্ম নেওয়া মলি গিবসনের ভ্রূণ সংরক্ষণ করে রাখা হয়েছিল। ২০২০ সালে ফেব্রুয়ারি মাসে ভ্রূণটি টিনা গিবসনের গর্ভে প্রতিস্থাপন করা হয়। ২০১৭ সালে নভেম্বর মাসে টিনা গিবসনের গর্ভে জন্ম নেয় এমা গিবসন। ওই ভ্রূণ ২৪ বছর সংরক্ষণ করে রাখার পর প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল টিনা গিবসনের গর্ভে। আরও একটি মজার বিষয় হল, বাস্তবেও ভ্রূণ দুটি ছিল দুই বোন। মলি ও এমা একই পিতামাতার ভ্রুণ। তাদের প্রকৃত পিতামাতাই ওদের দান করেন নিঃসন্তান দম্পত্তিদের জন্য। গোপনীয়তার শর্ত থাকায় প্রকৃত মাতা-পিতার নাম গোপন রাখা হয়েছে। তাই তাদের প্রকৃত পিতামাতার কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।