ইতিহাসনামায় আপনাকে স্বাগতম

অবসরে বিষন্নতার আধার - লিখেছেন - মোবারক ইবনে মনির




দীর্ঘদিন ধরে অনেকেই একঘেয়ে জীবন পার করছেন। সময় কাটানোর জন্য কত করসত করেছেন তার কোন ইয়ত্তা নাই। বই পড়ে,মুভি দেখে,ফেসবুক চালিয়ে, পারিবারিক কাজে সহযোগীতা করে আরো নানা উপায়ে। আমাদের যাদের ঘোরাফেরা অভ্যাস তাদের জন্য সময়গুল ছিলো বেশ কষ্টের। একবারো ভেবে দেখেছি আমাদের মা,বোন ও স্ত্রীরা সারাবছর লকডাউনে থাকে। এ সময়ের মধ্য আমাদের ইচ্ছেরা কতবার লাগামহীন হতে চেয়েছে। তাদেরও তো ঘুরতে ইচ্ছে করে। ভেবে দেখুন তো আমরা কয়দিন তাদেরকে বাড়ির বাহিরে ঘুরতে নিয়ে গেছি। যাই নি। অযুহাত দিয়েছি। বউকে বলেছি, সময় নেই, দেখো না সারাদিন ব্যস্ত থাকি।
বোনকে বলছি,মেয়েমানুষের এত ঘুরাঘুরির ইচ্ছা কেন?? চুপচাপ বাড়ি বসে থাক। 
আর মার তো ঘুরাঘুরির বয়স শেষ।
নিজেদের প্রয়োজনে আমরা কত যুক্তি দেই।

২.
         করোনাকালের যাপিত সময়ে কত যুবক-যুবতী অন্ধককার জগতে পা বাড়িয়েছে তার হিসেবটা করে দেখিনি। সময় কাটাতে,বিষন্ন মনকে তৃপ্ত করতে পা বাড়িয়েছে নিষিদ্ধতার নীল জগতে। এক জরিপে দেখা গেছে পূর্বের তুলনায় এই সময়ে নীল জগতে পদচারণা বেড়েছে দ্বিগুণহারে। 
এমনি এক পর্ণ ওয়েবসাইট তাদের সমীক্ষার রিপোর্টে জানিয়েছে, "এই লকডাউনের মধ্যে ফ্রান্সে পর্ন দেখার প্রবণতা বেড়েছে ৪০ শতাংশ, জার্মানিতে ২৫ শতাংশ, আমেরিকায় ২৬ শতাংশ, ইতালিতে ৫৫ শতাংশ, রাশিয়াতে ৫৫ শতাংশ, স্পেনে ৬০ শতাংশ। আর ভারতে? ৯৫ শতাংশ।"(১)
ভাবতে অবাক লাগলেও বাস্তবটা বলতে হচ্ছে। যার ফলে পরিবারের সাথে সুন্দর মুহূর্ত কাটানোর পরিবর্তে ডিপ্রেশনে ভুগছে শত শত শত তরুণ-তরুণী। এক বিষন্নতা কাটাতে আরেক ঘন কালো বিষন্নতায় আচ্ছন্ন হয়ে পড়েছে। যার ফলে আত্মহত্যার মত দুঃসাহস চিন্তা মাথার মধ্যে ঘুরপাক খাচ্ছে।

৩.
       একটা ভুল বা অন্যায় মানুষেট জীবনের পরিসমাপ্তিটা কেমন হয় তার উদাহরণ সমাজে ভুরি ভুরি। তবুও খুব কম সংখ্যক ব্যক্তি তার থেকে শিক্ষা গ্রহণ করছে। আমরা প্রত্যেকেই জানি ব্লুফিল্মের ভয়াবহতা কতটা মারাত্মক। এ বিষয়ে কারো অজানা নেই। আমাদের প্রত্যেকের ব্যক্তিগতভাবে সচেতন হওয়া উচিত। নিজে ভালো না হতে চাইলে কেউ কাউকে ভালো বানাতে পারে না। আর কোন কিছু এক দুই দিনে সম্ভব না। এর পিছনে দীর্ঘ একটা কাল অতিবাহিত করতে হয়। ভালো কিছু দিক উল্লেখ করি। এই করোনাকালে ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনেরর হার কমে গেছে। এর কারণ অবশ্যই বুঝতে পেরেছেন।  

৪.
      আমাদের সমাজে যে বিষয়টি বেশি ঘটছে তা হচ্ছে গোপন অন্যায়। গোপনীয়ভাবে নিষিদ্ধ এলাকাতে ভ্রমণ। তা এখন ঘরে বসেই সম্ভব।  অনেকে হয়ত নিজেকে শয়তানী যুক্তি দ্বারা বৈধ বানিয়ে নিয়েছেন। নিজের কারণেই একদিন আপনার সামাজিক ও পারিবারিক জীবন ক্ষতিগ্রস্ত হবে। তাই কোন কাজ করার ক্ষেত্রে আগে তার পরিণতি ভেবে নেওয়া উচিত। এখন আমরা তরুণরা অনের বুদ্ধিমান। তাই সবার কাছে আশাবাদী কেউ নিজের খারাপি হয় এমন কিছু করবেন না। একান্ত অনুরোধ।

এ জন্য একবার হলেও আপনার পরিবার ও সমাজের দায়বদ্ধতা নিয়ে ভাবুন। সৃষ্টিকর্তা আপনাকে অনার্ধক পৃথিবীতে পাঠান নি। সেই উদ্দেশ্য অন্বেষণে ব্রতী হওয়া উচিৎ । 
__________________________


মোবারক ইবনে মনির
বাস্তবতার সন্ধানে বই পড়া। সময়ে-অসময়ে একাকী পথ হাঁটা। গান শুনতে ভালোবাসা। আর একজন আপাদমস্তক ইসলাম প্রেমিক।