ইতিহাসনামায় আপনাকে স্বাগতম

ছোটগল্পঃপ্রিয়তমারা মানুষ হয় না - লিখেছেন - সিদরাতুল মুনতাহা


সাদাত কলিংবেল টিপে। কেউ একজন ভেতর থেকে সহজভাবেই দরজাটুকু খুলে দেয়। ভেতরে ঢুকে সাদাত জুতো খুলতে খুলতে সে অফিসের ব্যাগ খানি নিয়ে নেয় সাদাত থেকে। তারপর ক্লান্তি অবশ্রান্তি আর বিরক্তি নিয়ে সাদাত বাথরুমের দিকে পা বাড়ায়। মুখ ধুতে ধুতে সাদাত ভাবতে থাকে জীবনটা কতই না অদ্ভুত। কলিংবেল শুনে খুলে দেয়া ব্যাক্তিটি আর কেউ নয়, অণু।
তার একসময়ের প্রেমিকা ও বর্তমানে বিবাহিত স্ত্রী। সে ভাবছে গত ১৫ দিন সে কলিংবেল টিপে নি। নিজে খুলেছে দরজা। কেউ একজন তার অফিসের ব্যাগ তুলে নেয়নি। তোয়ালে এগিয়ে দেয়নি। এই ১৫ দিন সে এসব আশা ও করেনি। আজ কিভাবে জানি সে অনুভব করল তার কলিংবেল দেয়া উচিত। গত ১৫ দিন অণু ছিল না। অভিমানের জোরে বলে গিয়েছিল, "আমি ফিরে  আসবোনা।" সাদাত চুপ থাকে। ভাবে যাক না নাহয়। এই ১৫ দিন সে অনুকে কল দেয় না। কোনভাবে তাদের মধ্যখানি যোগাযোগ হয় না। অনু আজ ফিরে আসবে সাদাত জানত না বটে। কিন্তু আনমনেই তার মনে হল আজ কেউ একজন তার অপেক্ষা করছে।

অনু অল্প শ্যাম বর্ণের। অফিসে সদ্য প্রেম নিবেদন করা বসের বউয়ের উজ্জল চোখ ধাধাঁনো রূপে তাকিয়ে সাদাত সুখ পায় না। এই সুখ সে শুধু অনুর দিকে তাকিয়ে পায়। অনু তার প্রিয়তমা। শেষবার যখন অনু এ ব্যাপারে ঝগড়া করে চলে যায়, সাদাত বলতে পারে না সে সুখ খুঁজে পায় কেবল প্রিয়তমার মাঝে। বলতে পারে না, অনু চলে যেও না। আটকানোর ইচ্ছাও করে না তার। এসব ভাবতে ভাবতে সাদাত বাথরুম থেকে বেরিয়ে আসে। বাকি সময় কেউ কারো সাথে কথা বলেনা। অনুর দিয়ে যাওয়া চা শেষ করতে করতে অফিসের বাকি কাজটুকু সেরে নেয়। সাদাত ভাবতে থাকে, প্রিয়তমারা মানুষ হয় না। কত অভিমান বুকে নিয়ে অনু চলে গিয়েছিল। অনু কি বুঝতে পেরেছিল সাদাতের বুক জুড়ে শূন্যতা ছিল?
কই,সাদাত তো কিছু বলে নি? অনু ফিরে আসল কেন? অনুর কোন প্রশ্নের ও তো জবাব দেয়নি সে সেদিন। চুপকরে ছিল। যদি বুঝতেই পারত; সাদাতের চোখে সেদিন অনুর জন্যই শুধু জমে থাকা ভালবাসা দেখেনি কেন? সাদাত বুঝতে পারে না। অনেক বছর আগের কথা মনে পরে যায় তার।

ভার্সিটিতে থাকাকালীনকখনো সে অনুর সাথে কথা বলার সাহস করত না। ভালছাত্র হিসেবে সুনাম আর প্রভাব দুটোই সে সবার উপর বিস্তার করতে পারলেও অনুর সাথে কথা বলার সাহস হয়ে উঠত না। চারবছর এক সাথে থাকার পরও কেউ কোনদিন কথা বলে না। হঠাৎ বর্ষাস্নাত একদিন করিম চাচার দোকান থেকে চা খেয়ে হেটে বড় রাস্তার দিকে ভিজে ভিজে যাওয়ার সময় অনু সামনে থেকে দ্রুতপদে এসে ঝাপটে ধরে। বলে উঠে, আমিওতোমায় ভালবাসি প্রিয়। সাদাত বুঝে না অনুকিভাবে বুঝল। এই ভালবাসার কথা সে কাউকে বলে নি। কখনো কাউকে বুঝতে দেয়নি। কোন জায়গায় অনুর জন্য দিনের পর দিনজমে থাকা ভালবাসা প্রকাশ করে নি। অনু কিভাবে বুঝে উঠল। সাদাত কিছু বলে না। হয়ত প্রিয়তমারা বুঝে যায়। এই ভেবে নেয় সে। ভালবাসাদিয়ে আঁকড়ে ধরে অনুকে। কিন্তু সব বুঝেও কেন প্রিয়তমারা মাঝে মাঝে দূরত্ব খুঁজে, তার উত্তরও পায়না সাদাত। হয়ত প্রিয়তমারা অমানুষ হয়ে কস্ট দিতে ভালবাসে, আবার ভালবাসার সব গন্ডিও পেরিয়ে যায়। রাতের আধারে সাদাতের বুকে মুখগুজে দেওয়া মানুষকে আবারওআঁকড়ে ধরে সে। কারন প্রিয়তমারা মানুষ হয়না।

+লেখক: সিদরাতুল মুনতাহা
গোধূলির ম্লান আলোর স্নিগ্ধতায় নিজেকে ফিরে পেতে ভালবাসেন।

ফেসবুক আইডি:আইডি লিংক