ইতিহাসনামায় আপনাকে স্বাগতম

শিকল - লিখেছেন - যায়েদ সানি


আমার পায়ে বাঁধা আছে তিনশ বছরের পুরোনো শিকল,
এই শিকল দিয়ে ঘুরিয়েছে ইংরেজি, পাকিস্তানিরা-
তাদের বুট জুতার দগদগে ঘা বুকের বাঁ পাশে এখনো বয়ে বেড়াই।

আমার পায়ে আজ গণতন্ত্রের শিকল বাঁধা,

তাই বিপ্লব করতে পারিনি আজও-
আজো করতে পারিনি ফসলের সুষম বন্টন।
তুলতে পারিনি আওয়াজ, করতে পারিনি চিৎকার
রুখতে পারিনি নিপীড়ন।

আমার পায়ে বাঁধা আছে ভালোবাসার শিকল,

যার চারপাশ জুড়ে ছিল শুধু ঘৃণা আর আশাহীনতা,
যেখানে ভালোবাসা নামক শব্দ থাকলেও ছিল অভ্যাসের আনাগোনা।
এই অভ্যাসকে পুঁজি করে তার মত পুঁজিবাদী হিংস্র হায়নার মত চুষেছে রক্ত।

আমার পায়ে পরিবারের দায়িত্বের শিকল ছিল,

ভেবেছিলাম সন্ন্যাসী হবো...
কিন্তু দায়িত্বের কাছে হেরে গিয়েছি বারে বার,
আটকে গিয়েছি পরিবার নামক মরণ ফাঁদে।

আমার পায়ে বাঁধা আছে ধর্মের শিকল,

তাই বাবুদের বাড়ির শব যাত্রায় যাওয়া হয়ে উঠে নি,
যাওয়া হয়ে উঠেনি করিমদের বাড়ির কোরবানির গরুর সামনে।
এইভাবেই ভাগ হয়েছি আমি বারবার!

আমার পায়ে বাঁধা ছিল জাতের শিকল,

আমি খেতে পারিনি তাই ব্রাহ্মণদের হাতের রান্না,
দাঁড়াতে পারিনি ক্ষত্রিয়দের সামনে।
আমি চন্ডাল বলে স্তন ঢাকতে পারিনি কাপড় দিয়ে,
স্তনের করের বোঝা সইতে না পেরে আত্মহত্যা করেছি আমি।
এইভাবেই সহস্রবর্ষ ধরে বয়ে বেড়াচ্ছি হাজার হাজার শিকলের বাঁধন,
ভাঙতে পারিনি একটি শিকলও!
শুধু নিজের মধ্যে উঠেছি ফুলে ফেঁপে উত্তাল সৈকতের মত!
আজ কিংবা কাল অথবা সহস্র বছর পর
আমি নয়তো আমার মত কেউ একজন
ভেঙে দিবে সমাজের, ধর্মের, জাতের, গণতন্ত্রের সব শিকল-
যার জন্য আমি এখনো বুঝে উঠতে পারিনি জীবনের আর প্রকৃতির অব্যক্ত সব কথা।  




জায়েদ সানি
জন্মের পর থেকেই সুইসাইডাল। তবে বন্ধুদের ভালোবাসি বলে হয়তো কোনো দিনই আত্নহত্যা করা হয়ে উঠবে না।