ইতিহাসনামায় আপনাকে স্বাগতম

তোমাকে না লেখা চিঠি - লিখেছেন - রেদওয়ানা তাবাসসুম বহ্নি


প্রিয়,
অনেকদিন পর তোমার সাথে দেখা হয়ে গেলো। যাপিত জীবনে পরিচিত পথে রোজই তো কতশত জনের সাথে দেখা হয়ে যায়।তবে, তোমাকে আবার দেখবো এটা ভাবিনি! দশ বছর, পাঁচ মাস, কুড়ি দিন পরে আবার তোমার সাথে দেখা হয়ে গেলো! থমকে গেলো আমার সময়।
নদীর স্রোতের মত সময় বয়ে গিয়েছে। বদলে গিয়েছি তুমি আমি দু'জনেই। গোঁয়ার, বদমেজাজি, বেয়াদব, খ্যাত সেই তুমি আজ ধীর, স্থির, মৃদুভাষী। অথচ, বদলায়নি তোমার ঠোটের কোণের সেই মুচকি হাসি টা!
সেই হাসি! সদ্যকৈশোরে পদার্পণ আমার। চারপাশের সবকিছুই রঙীন লাগে। প্রজাপতির পিছনে ছুটতে গিয়ে সন্ধ্যায় ঘরে ফিরে মায়ের বকুনী খাবার বয়স। অথচ, সেই বয়সেই এক বিকেলে তোমার ঐ হাসিতে আমি পথ হারালাম। ভুলে গেলাম সময়, দায়িত্ব, জীবনের মারপ্যাঁচ। দিনরাত তোমাকে একটুখানি দেখতে পাবার আশা। তোমার কোন একটা খবর পাবার জন্য কি ছটফটে সময়টাই না তখন কাটতো! তোমার এসবের কোন খেয়াল ছিলো না। তাতে আমার অবশ্য  কিছু যেতো আসতো না। আমি তো কেবল তোমাকে ভালোই বেসেছিলাম।

আচ্ছা তোমার স্ত্রী কেমন আছে? সে কি তোমাকে আমার চেয়েও বেশি ভালোবাসে? দিনশেষে তুমি ঘরে ফিরলে তোমার ঘামে ভেজা মুখটা আঁচল দিয়ে মুছে দেয়? রাতের বেলায় তোমার মাথায় হাত বুলিয়ে ঘুম পাড়ায়? প্রচণ্ড অস্থির সময়ে তোমার নার্ভ ঠান্ডা রাখার জন্য সে কি তোমার প্রিজন ব্ল্যাক কফি বানিয়ে আনে? আচ্ছা সে কি তোমার পছন্দ-অপছন্দগুলো মুখস্থ করেছে, ঠিক যেমন আমি করতাম।তুমি সবুজ রং পছন্দ করো বলে সেও কি আমার মতই আলমারী ভর্তি সবুজ শাড়ী কিনে রেখেছে? আমার মত সে ও কি তোমার ছবিগুলো নিয়ে গোপন এলবাম বানিয়েছে? তোমার ব্যর্থতার সময়গুলোতে তোমার সাথে কেঁদেছি আমিও। আচ্ছা, তোমার স্ত্রীও কি তোমায় অবুঝ বাচ্চার মত শান্ত করে? হবে হয়তো! আজ তুমি সবার সামনে হাসিমুখে বলো-"আমার সাফল্যের জন্য একমাত্র মানুষ আমার স্ত্রী!"

জিম ক্যারি'কে চিনতাম ই না আমি।অ থচ তুমি যেদিন বলেছিলে, সে তোমার প্রিয় অভিনেতা আমিও তার ভক্ত হয়ে গেলাম!
তোমার নীল পাঞ্জাবী পড়া ছবিটা কতরাত বুকের মাঝে নিয়ে ঘুমিয়েছিলাম! তুমি কোনদিন ও জানবে না! তোমার ছোটবোন রিতু! কত বড় হয়ে গিয়েছে তাই না! শুনলাম তাকে নাকি বিয়েও দিয়েছো! গুছিয়ে সংসার করুক এই কামনাই করি।
তোমার ঘর আলো করে ছোট্ট এক রাজকন্যা এসেছে খবর পেয়েছি। তাকে বুকে জড়িয়ে তোমার সকাল থেকে রাত হয় !অথচ, আজ তো এই রাজকন্যা আর তোমাকে নিয়ে সুখের রাজ্যপাট আমারও হতে পারতো!
হয় নি! কারণ, আমার এই গোপন ভালোবাসাটা তুমি কোনদিন ই জানতে পারো নি। ভবিষ্যতেওও জানবে না। তোমাকে গোপনেই ভালোবেস গিয়েছি। প্রথম কৈশোরের প্রথম প্রেম কি আর ভোলা যায়!
আচ্ছা তোমার স্ত্রী'র সাথে কি বরফের দেশে ভোরের সূর্যোদয় দেখেছো তুমি? আমার কত শখ ছিলো তোমার হাত ধরে পাশাপাশি দাড়িয়ে দেখবো! সব শখ কি আর পূরণ হয়! এই যে দেখো, আজ তুমি অন্যকারো হাত ধরে হেসে আমার সামনে দিয়ে চলে গেলে। ফিরে তাকিয়ে জিজ্ঞেস ও করলে না ভালো আছি কিনা!
আমারও তোমাকে কোনদিন ও বলা হলো না--"তোমার মত এই অগোছালো মানুষটার প্রশ্রয় হতে চেয়েছিলাম আমি"

তুমি চলে গেলে,আমিও ফিরে এলাম আমার ঠিকানায়। ঠিক তখনই, বুকের ভেতরের চিনচিনে ব্যথাটা জানিয়ে দিলো, তোমাকে আজও ভুলি নি আমি!
ভালো থেকো আমার প্রথম কৈশোরের প্রেম।
ইতি,
পাগলামি করা কেউ একজন  


+লেখকঃ রেদওয়ানা তাবাসসুম বহ্নি
মানুষের ডাক্তার হবার কার্যক্রম শেষ। কিন্তু মেডিকেলের কঠিন পড়াশোনা কোনদিনই ভালো লাগেনি। তারচেয়ে বরং বিষন্ন সন্ধ্যায় ইতিউতি জীবনানন্দকে খুঁজি।
ফেসবুক আইডি:আইডি লিংক